নিজেকে খুশি রাখা দরকার। কাউকে ভালোবাসাটা দরকার।

68 / 100

বাবা মায়ের বাধ্য মেয়ে শ্রীতমা। বাবা মায়ের সব কথা সে শুনে এসেছে ছোটবেলা থেকে। মনে মনে সে ভাবে যে বাবা মায়ের কথা শুনে চললেই সে জীবনে সফল হবে। পড়াশোনাতে চিরকালই ভালো সে। কিন্তু তথাকথিত ভাবে দেখতে খুব একটা ভালো নয় শ্রীতমা।

A Love Beyond The Society

নিজেকে খুশি রাখা দরকার। কাউকে ভালোবাসাটা দরকার।

একাকীত্ব না ভালোবাসা ?

সন্তানের মা হলে কি ভালোবাসা বারণ ?

তাই প্রেম বলতে তেমন কিছুই আসেনি তার জীবনে, কারণ প্রায় সব ছেলেরাই রূপের অন্ধকারে নিমজ্জিত থাকে। কিন্তু শ্রীতমা এসব নিয়ে ভাবেওনি কখনো।

বাকি আর পাঁচ জনের মতো সেও ভালোবাসা চায়, কিন্তু শ্রীতমা ভেবেছিল যে বিয়ের পরেই তার এই স্বপ্ন সত্যি হবে। আর বাবা মেয়ের পছন্দ করা ছেলেকে বিয়ে করলে বাবা মাও খুশি হবে।

sutapa-halder-p-09

        পড়াশোনায় ভালো হবার দরুন চাকরি পেতে খুব একটা অসুবিধা হয়নি শ্রীতমার। কলেজ শেষ করার কয়েক মাস পরেই একটা বেসরকারি কোম্পানিতে উঁচু পদে চাকরি পায় সে। আর তারপর বাবা মা দেখাশোনা শুরু করে। পছন্দ মতো ছেলেও পাওয়া যায়।

ছেলের নাম কৌশিক। কৌশিক সরকারি চাকরি করে। তাই এক কথায় রাজি হয়ে যায় শ্রীতমার পরিবার। দেখাশোনার এক মাসের মধ্যেই বিয়ে হয়ে যায় দুজনের। তাই দুজন দুজনকে চেনার, জানার সময় পায়নি বেশি। শ্রীতমা ভেবেছিল যে বিয়ের পর চেনা জানার বিষয়গুলো হবে না হয়।

        কিন্তু বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই ভুল ভেঙে যায় তার। সে বুঝতে পারে যে কৌশিকের মন শুধুমাত্র শ্রীতমার নয়। দুজনেই সকালে বেরিয়ে যায় চাকরি করতে, ফেরে সন্ধ্যের পর। কিন্তু তারপরেও কৌশিক খুব একটা গল্প করেনা শ্রীতমার সাথে।

sutapa-halder-p-33

সে ব্যস্ত থাকে নিজের ফোন নিয়ে আর মাঝে মধ্যে মুচকি মুচকি হাসতে থাকে। শ্রীতমার খুব খারাপ লাগে ব্যাপারটা। ভালোবাসা তো অনেক দুরের কথা। তাদের মধ্যে সামান্য আলাপ, গল্প, সুখ দুঃখের কথাও হয়না।

একদিন রাতে শ্রীতমা যখন প্রায় ঘুমের মধ্যে চলে গেছে ঠিক তখন ফোনটা বেজে ওঠে কৌশিকের। শ্রীতমার ঘুম ভেঙে যায়, কিন্তু সে ঘুমানোর অভিনয় করে। কৌশিক অতি সাবধানে ফোনটা তুলে ফিসফিস করে কথা বলে। শ্রীতমার সন্দেহ সত্যি হয়।

কৌশিক প্রেম করে! শ্রীতমার নিজের উপর রাগ হয়, ঘেন্না হয়। তারপর মনে মনে ভাবতে থাকে মা বাবার কথা, মা বাবা এমন একটা ছেলের সাথে তার বিয়ে দিল যে কিনা অন্য একটা মেয়ের সাথে প্রেম করে! তাহলে শ্রীতমা কেন শুধু শুধু সতি সাবিত্রী সেজে জীবন কাটাবে? খুব রাগ হয় শ্রীতমার, জীবনের প্রতি।

sutapa-halder-p-10

        পরের দিন শ্রীতমা অফিস যায়। অফিসের জুনিয়ার ছেলে, নাম শুভজিৎ, শ্রীতমার দিকে তাকিয়ে থাকে হাঁ করে। শ্রীতমা এতদিন সেটা লক্ষ্য করেনি। আজ সে দেখল, তার ভাল লাগলো।

কেন? মেয়েদের কি ভালোবাসা ভাললাগতে নেই? অফিস ছুটির পর শ্রীতমা নিজে শুভজিৎ-এর কাছে গিয়ে কথা বলা শুরু করে। মিনিটের মধ্যেই ছেলেটাকে ভালো লাগতে শুরু করে শ্রীতমার। কারণ তার কথা এইভাবে একমনে কেউ কোনোদিন শোনেনি।

তারপর শুভজিৎকে নিয়ে বাইরে যায় শ্রীতমা। রেস্টুরেন্টে তারা খাওয়া দাওয়া করে, হাসি ঠাট্টা, চোখে চোখে চাহুনি, সবকিছুই হয়। গল্প করতে করতে কখন যে রাত নটা বেজে যায় বুঝতে পারেনা শ্রীতমা। হঠাৎ ঘড়ি দেখে আঁতকে ওঠে সে।

sutapa-halder-p-13

তাঁকে এবার বাড়ি যেতে হবে। যাওয়ার আগে শুভজিৎ হাতটা ধরে শ্রীতমার। শ্রীতমা হাসে। সেই স্পর্শের মধ্যে শ্রীতমা একান্ত নিজস্বতা খুঁজে পায়। মনটা খুশি করে শ্রীতমা বাড়ি ফিরে আসে।

        শ্রীতমা বোঝে যে শুধু সবাইকে খুশি করতে গিয়ে সে যে কখন নিজের খুশি হারিয়ে ফেলেছিল সে বুঝতে পারেনি। নিজের খুশি থাকাটা দরকার, নিজেকে খুশি করাটা দরকার।

জীবনে কাউকে ভালবাসাটা দরকার, সেটা যখনই হোক না কেন, যে কোন বয়সেই হোক না কেন।

Leave a Comment